শর্ত

তোমাকে আমি উড়তে শেখাব যদি তোমার ভাঙ্গা হৃদয়ে হৃদয় ছোঁয়াতে দাও আমায়। তোমার অশ্রুজলে আমি বিদায়ী চুমু খাব যদি আমার বাহুতে এসে আবদ্ধ হও তুমি। ঘন বরষায় তোমায় আলো দেখাব যদি আমার পানে চেয়ে শুধু মুচকি হাসো একবার। আমার লেখা সবগুলো গান তোমায় গেয়ে শোনাব যদি আমার আলিঙ্গনে ঘুমিয়ে পড়তে চাও বারবার। তোমাকে সুউচ্চ পর্বতের […]

সভ্যতা

বেশ্যার পায়ের কাছে পড়ে থাকে সভ্যতা নীরব, নিস্তব্দ, শূন্য জোড়া চোখ তিরতির কাঁপা জোড়া ঠোঁট নিথর জোড়া পা বাঁকা অবয়ব। থেকে থেকে মাটিতে মাথা ঠুকে সভ্যতা চাপা কান্না জুরে দেয়, কি এক আশ্চর্য যন্ত্রণায় পার হয়ে যায় শতাব্দী পর শতাব্দী, কিন্তু তার মুক্তি মেলে না বেশ্যার পদধূলি থেকে। সভ্যতার বন্ধিত্বে থেমে থাকে স্রোতস্বিনীর স্রোত, দাঁড়িয়ে […]

শিহরণ

নিঃশ্বাসের উপর ভর করে আমি হেঁটে যাই তোমার কাছে। স্কুল জীবনে শিরিনের সদ্য ফোলা বুকের উপর প্রথম চোখ পড়তেই যে শিহরণ জেগেছিল মনে ঠিক সেরকম একটা অনুভূতি আমার অস্তিত্ব ছেয়ে ফেলে তুমি দৃষ্টিগোচর হলে। রক্ত কণিকার উপর ভর করে আমি ভেসে যাই তোমার কাছে। মায়ের পুরনো শাড়ি কেটে লেজ বানিয়ে প্রথম যেদিন আকাশে সাপ ঘুড়ি […]

নিষিদ্ধ অবয়ব

থেকে থেকে একটা নিষিদ্ধ যাতনা কাঁপুনি ধরায় আমার হৃদপিণ্ডে। দীর্ঘ যাতনার ক্লান্তিতে একটা সময় সেখানে নেমে আসে নিষিদ্ধ প্রশান্তি। এভাবে শতাব্দী পার হয় ঝুলে থাকে এক নিষিদ্ধ অনুভূতি। যন্ত্রণায় নীল হয়ে যাওয়া পা ফেলি আমি নিষিদ্ধ ভূমিতে। প্রচণ্ড খিদেয় গিলে খাই নিষিদ্ধ গাছের নিষিদ্ধ ফল, শত বছর অপেক্ষারত আমার তৃষ্ণার্ত চোখ ― প্রথম বারের মত […]

নৈশূন্য

কালো পিচের রাস্তাটাকে দন্তহীন মুখে চুমু খেতে খেতে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে তিনটে কালো টায়ার। ঠিক যে সামনে এগুচ্ছে সেটাও বলা যাচ্ছে না। কারণ টায়ারের কাছে সামনে-পেছনে বলে কিছু নেই। এরা শুধু ঘুরে আর চুমু খায়। চুমু খেতে খেতে কোথায় যায় এরা জানে না। কেন ঘুরে সেটাও জানে না। পেট ভর্তি এদের উষ্ণ হাওয়া। যখন খিদে […]